আমরা এখন নকল দুধও তৈরি করতে পারি

Sunday, November 2, 2008

বাঙালির বুদ্ধির বলিহারি যাই। আসল জিনিসের কোন খোঁজ নাই, কিন্তু নকল জিনিস বানাতে ওস্তাদ। ৩১ অক্টোবর ২০০৮ তারিখের প্রথম আলো পত্রিকায় প্রকাশিত খবরে জানা গেল যে পাবনা, সিরাজগঞ্জ এলাকায় নকল দুধ তৈরি হচ্ছে। সেখানকার দুধ ব্যবসায়ীরা আসল দুধ থেকে ছানা তৈরি করার পর ফেলে দেয়া ছানার পানিতে নানারকম রাসায়নিক দ্রব্য মিশিয়ে নকল দুধ তৈরি করছেন। কি ভয়ানক, আতঙ্কজনক খবর। দুধ সাধারণত শিশুরাই খায়। শহরাঞ্চলে যাদের গরু পালবার কোনরকম উপায় নাই, তারাই বাজার থেকে দুধ কিনে শিশুকে খাওয়ায়।

কিছুদিন আগে সারা পৃথিবীর সাথে সাথে বাংলাদেশেও মেলামাইন মিশ্রিত গুড়ো দুধ নিয়ে তোলপাড় হয়ে গেল। এই দূষিত গুড়োদুধগুলো আনা হতো বিদেশ থেকে। দেশীয় নকলবাজরা এই খবরে বোধহয় অসন্তুষ্ট হয়েছেন। তাই নিজেরাই দুধ নকল করতে আরম্ভ করে দিয়েছেন। আমরা মানুষকে আসল দুধ খাওয়াতে না পারি, ভেজাল ও নকল দুধ যে খাওয়াতে পারছি এতেই আমাদের তৃপ্তি। আমরা কি কম পারি নাকি? আমাদের ঘটে কি যথেষ্ট বুদ্ধি নেই, যে বিদেশ থেকে খারাপ দুধ এনে শিশুদেরকে খাওয়াতে হবে?

এই খবরে আমি অবশ্য অতটা দুঃখিত হচ্ছি না। কারণ আমরা ভেজাল ও নকল জিনিষ খেতে অভ্যস্ত। বরং আসল জিনিস খেলেই আমাদের পেট খারাপ হয়। আমরা কার্বাইড মেশানো আম, রাসায়নিক রং মেশানো খাবার, মবিলে ভাজা পিয়াজু, সিঙ্গারা, পাথর বালি মেশানো চাল-ডাল না খেতে পারলে বরং মনঃক্ষুন্ন হই। আমাদের দেশের কর্ণধাররা আমাদেরকে এমন সহনশীল করেই তৈরি করেছেন। আমাদের সন্তানরাও এসব খেয়ে অভ্যস্ত। তাদের জীবনীশক্তি অত দুর্বল নয় যে সামান্য নকল দুধ খেয়ে পটল তুলবে।
প্রথম আলো, ৩১ অক্টোবর, ২০০৮। লিংক

0 comments:

Post a Comment

পদচিহ্ন

Blog Archive

মুক্তমনা বাংলা ব্লগ

  © Dristipat

Back to TOP